রেজি তথ্য

আজ: মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ১৩ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া-কুমিরা নৌ-রুটে জনসাধারণের দুর্দশা বিরুদ্ধে প্রতিবাদী র‍্যালিতে পুলিশের বাধা

ইকবাল ইবনে মালেক, প্রতিনিধি,সন্দ্বীপ:

সন্দ্বীপ থেকে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড আসা–যাওয়ার জন্য সবচেয়ে প্রসিদ্ধ পারাপার ঘাট হলো গুপ্তছড়া–কুমিরা ঘাট। কুমিরা ঘাট থেকে সন্দ্বীপ উপজেলার গুপ্তছড়া যাতায়াত করতে স্প্রীড বোটে সময় লাগে কম বেশি ২৫ মিনিট। আর এই ২৫ মিনিটে যাত্রীকে গণতে হয় তিনশ টাকা । অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ছাড়াও উঠানামা দুর্বিষহ রয়েছে নানান অনিয়মের অভিযোগ। ঘাট কর্তৃপক্ষকৃত যাত্রী হয়রানি , মালপত্রে অধিক পরিমানের অর্থ আদায় , প্রবাসী কিংবা রোগীদের হেন্স্তা এক কথায় এখানে মানা হয়না রাষ্ট্রীয় কোন আইন। মান্য করা হয়না এমপি কিংবা মন্ত্রীকেও।

এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে সন্দ্বীপ নৌ-রুটে প্রতিবাদে আয়োজিত মোটর সাইকেল র্যালিতে বাধা প্রদান করে সন্দ্বীপ উপজেলা প্রশাসন ।
শুক্রবার (২৫ মার্চ) এই র‌্যালী ডাক দিয়েছিলো অনলাইনে সক্রিয় সন্দ্বীপের তরুন সমাজ।
বিকাল তিনটায়ে উপজেলা প্রশাসন মাঠ থেকে এই র‌্যালী শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দুপুর থেকে কয়েক প্লাটুন পুলিশ ওই মাঠ ঘিরে অবস্থান নেয়। এসময় র্যালিতে অংশগ্রহণ করতে আসা তরুণদের শতাধিক মোটর সাইকেলে আটক করে পুলিশ।
পরে সন্দ্বীপ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বশির আহমেদ খানের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে র‌্যালীর আয়োজকরা তাদের লিখিত বক্তব্য উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা সম্রাট খীসার কাছে পেশ করেন।
রহমতপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদুল মাওলা কিশোরের নেতৃত্বে প্রদত্ত এই লিখিত বক্তেব্যে বলা হয়েছে, সরকারের সবগুলো সংস্থার অগচোরে সম্প্রতি ইজারাদার স্পীড বোটের ভাড়া বৃদ্ধি করেছে। কোন ধরনের নিয়ম- নীতি না মেনে ইজারাদার তার খেয়ালখুশি মত ভাড়া আদায় করছে, যা প্রকারন্তরে এক প্রকার চাঁদাবাজি।
আন্দোলনকারী তাদের লিখিত বক্তেব্যে মোট আটটি অভিযোগের বিষয় উল্লেখ করেন।

১. দেশের সবগুলো ফেরীঘাটে ভাড়ার তালিকা সাইনবোর্ড আকারে প্রদর্শন করা হলেও কুমিরা-গুপ্তছড়া ঘাটে তেমন কিছু কখনো দেয়া হয়নি।
২. স্পীড বোটে মালের ভাড়ার কোন নিয়ম নেই, কাউন্টারের লোকেরাই তাদের খেয়াল-খুশি মতো ভাড়া ঠিক করে।
৩. দুই পাশের জেটিতে মাত্র ৩/৪ মিনিটের ভ্যানের ভাড়া যাত্রী প্রতি ২০/২৫ টাকা আদায় করা হয়। তাছাড়া যাত্রীদের সাথে মালপত্র থাকলে ইজারাদারের নিযোগকৃত ভ্যান চালক যা খুশি টাকা আদায় করে।
৪. লেবাররা ইচ্ছা অনুযায়ী টাকা আদায় করার জন্য যাত্রীদের সাথে চরম দূর্বব্যহার করে। কখন বোট ছাড়বে আর কখন ছাড়বেনা পূর্ব থেকে সেই ঘোষণা দেয়া হয়না।
৫. কুমিরা থেকে চট্টগ্রাম শহর পযন্ত যে কার সর্ভিস আছে তা থেকেও অতিরিক্ত টাকা আদায় করে। একটি কারের প্রতিটি ট্রিপ থেকে ৫০ টাকা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত নিয়ে নেওয়া হয়। এখানে যাত্রীদের কাছ থেকে যে ভাড়া আদায় হয় তাও খেয়াল খুশি মত।
৬. মালামাল পরিবহণের ক্ষেত্রে আরো বেশি অরাজকতা চলছে। চাকতাই থেকে সন্দ্বীপ পর্যন্ত একটি ৫০ কেজি ওজনের বস্তার ভাড়া যেখানে ২৫-৩০ টাকা সেখানে দশভাগের একভাগ দূরত্বের কুমিরা-গুপ্তছড়া রুটের ভাড়াও আদায় হয় ৩০ টাকা। অথচ এখানে বস্তা প্রতি মাসুল ১০-১৫ টাকার বেশি হওয়ার কথা নয়।
৭. কুমিরা খালে তারা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের বোট/ট্রলারকে মালামাল পরিবহণ করতে দেয়না।
৮. গুপ্তছড়া ঘাট থেকে একটি মহলের নির্ধারিত ট্রাক ছাড়া অন্য ট্রাক সহজে সিরিয়াল পায়না।
এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মোহাম্মদ খাদেমুল ইসলাম, হাসান আল নাহিয়ান, মাইনউদ্দিন আকাশ ও মোহাম্মদ রুস্তম ও খোদাবক্স সাইফুল।
অভিযোগ গ্রহণ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সম্রাট খীসা সাংবাদিকদের বলেন, এই বিষয়ে শীঘ্রই আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। র্যালি আয়োজনে বাধা প্রদান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শনিবার স্বাধীনতা দিবস পালনের জন্য প্রশাসন ব্যস্ত রয়েছে, যার কারণে এই র‌্যালীর অনুমতি দেয়া হয়নি। তবে, তাদের লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
এদিকে র‌্যালীর আয়োজকদের পক্ষ থেকে একই অভিযোগ দায়ের করা হয় সন্দ্বীপ থানায়।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (২৪ মার্চ) রাতে আয়োজকদের পক্ষ থেকে র্যালির বিষয়ে সন্দ্বীপের সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমান মিতাকে বিস্তারিত অবহিত করা হয়। এসময় তিনি আন্দোলনকারীদের দাবির প্রতি নিজের সমর্থন ব্যক্ত করেন বলেন আমি এ বিষয়ে অবগত। আমি বিষয়টা অফিসিয়ালি দেখতেছি।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১