রেজি তথ্য

আজ: বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

আজ গ্যাস সরবরাহ কিছুটা বাড়বে

আয়ন মোহাম্মদ :

সারাদেশে চলমান গ্যাস-সংকট কাটতে কিছুদিন সময় লাগবে। তবে আজ স্বাভাবিক হতে পারে সরবরাহ। বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের তিনটি কূপ থেকে গ্যাস উত্তোলনও স্বাভাবিক হতে পারে। তবে এতেও চলমান সঙ্কট দুর হবে না। বাকি তিনটি কূপ মেরামত করতে আরো সময় লাগবে।বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের দায়িত্বে রয়েছে বিদেশি কোম্পানির শেভরন। শেভরন বাংলাদেশের কমিউনিকেশন ম্যানেজার শেখ জাহিদুর রহমান গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্রে মোট ২৬টি কূপ রয়েছে। ৬টি কূপের পাইপলাইনে ময়লা জমে যাওয়া মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হয়। এখন মেরামতের কাজ চলছে।তিনি আরো জানান, একটি কূপ মেরামতের পর পুরোপুরি উত্তোলনের এসেছে। আজ মঙ্গলবার আরো দুটি কূপের মেরামত কাজ সম্পন্ন হতে পারে। ফলে আজ মঙ্গলবার মোট তিনটি কূপ থেকে গ্যাস উত্তোলন স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এক্ষেত্রে মঙ্গলবার রাত থেকে লাইনে গ্যাসের চাপ আরো বাড়বে। তবে অপর ৩টি কূপ মেরামত করতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। এ কারণে পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে।বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র সূত্রে জানা গেছে, অনেক সময়ই কুপের লাইনের বিভিন্ন স্থানে ময়লা জমে যায়। আবার অনেক সময় লাইনে গ্যাস এর পরিবর্তে বালু উঠতে শুরু করে। তখন খুব গুলো বন্ধ করে মেরামত করা হয। এটা নতুন কিছু না, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার অংশ। বিভিন্ন সময় কূপের সঞ্চালন লাইনে মেরামত করা হয়েছে। গত রোববারও সকাল থেকে ছয়টি কূপে মেরামতের কাজ শুরু হয়। এতে প্রায় কয়েক কোটি ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। দ্রুত কাজ শেষ করার চেষ্টা চলছে। গ্যাস সংকট যেন আরো প্রকট না হয় সেই চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রটি হচ্ছে দেশের সবচেয়ে বড় গ্যাসক্ষেত্র। এখান থাকে গ্যাস উত্তোলন বন্ধ হলে জাতীয় গ্রিডে বড় ধরনের প্রভাব পড়ে। ৬টি কূপে গ্যাস উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। তাই জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ কমে সারাদেশে গ্যাস সংকট দেখা দিয়েছে। এই গ্যাস ক্ষেত্রের উৎপাদন ক্ষমতা ১ হাজার ২৭৫ মিলিয়ন ঘনফুট।

এদিকে পেট্রোবাংলা সূত্র জানিয়েছে, ৬টি কূপ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় রোববার রাতে প্রায় ৪৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের সংকট দেখা দেয়। মঙ্গলবার রাত থেকে গ্যাস সরবরাহ আরো স্বাভাবিক হবে। তবে পুরোপুরি স্বাভাবিক হতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। কারণ অপর ৩টি কূপ মেরামত করতে সময় বেশি লাগবে। আগামী আর্ট এপ্রিল একটি এলএনজি কার্গো জাহাজ বাংলাদেশে পৌঁছার কথা রয়েছে। এই জাহাজটি পৌঁছলে দুই দিন পর অর্থাৎ ১০ এপ্রিল থেকে জাহাজের গ্যাস খালাস করে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করা হবে। তখন গ্যাস সরবরাহ অনেকটাই স্বাভাবিক হবে।

এদিকে আজ মঙ্গলবারও রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে গ্যাসের সংকট রয়েছে। লাইনে গ্যাসের চাপ কম থাকায় রান্নায় সমস্যা হচ্ছে। সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে জ্বালানি নিতে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। গ্যাসের চাপ কম থাকায় দীর্ঘ সময় লেগে যাচ্ছে গাড়ির গ্যাস সিলিন্ডার গুলো পূর্ণ হতে। সোমবার রাতে ও রাজধানীর সব সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে গাড়ির দীর্ঘ লাইন হয়।
রাজধানীর ধানমন্ডি, হাজারীবাগ, রায়েরবাজার, জিগাতলা, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, পল্লবী, উত্তরা, সহ বিভিন্ন স্থানে বাসাবাড়িতে সকালের দিকে হালকা গ্যাস পাওয়া গেলেও বেলা ১১টা থেকে গ্যাসের দেখা মেলেনি। এসব এলাকার বাসিন্দাদের রোজা রাখার জন্য সেহেরী করতে এবং সন্ধ্যায় ইফতার করতে বাইরে যেতে হচ্ছে।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯