রেজি তথ্য

আজ: বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

কর্ণফুলী গ্যাস ডিসেম্বরেই নতুন মিটার দেওয়ার আশা,প্রতিদিন জমা পরছে ১২০০ আবেদন

শেখ দিদারুল :

কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডে (কেজিডিসিএল) বহুল প্রতীক্ষিত প্রিপেইড মিটার পেতে আবেদনের হিড়িক পড়েছে । গত ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া আবেদন প্রক্রিয়ায় ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ৬৩ হাজার গ্রাহক আবেদন করেছেন। ৫৩ দিনে ৬৩ হাজার আবেদন- এই হিসাবে গড়ে প্রতিদিন প্রায় ১২০০ আবেদন কেজিডিসিএলে জমা পড়ছে প্রিপেইড মিটারের জন্য। তবে অনলাইনে আবেদনের এই সংখ্যা আশানুরূপ নয় বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। পেট্রোবাংলা কতৃপক্ষ সূত্রে জানা যায় – ১ লাখ চুলার জন্য আবেদন না পাওয়া পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন গ্রহণ করবে কেজিডিসিএল। অনলাইনে যারা আগে আবেদন করবেন তাদের আগে প্রিপেইড মিটার দেওয়া হবে। শর্ত মেনে অনলাইনে করা সব আবেদন যাচাই বাছাই শেষে নির্বাচিত আবাসিক গ্রাহকদের মধ্যেই কেবল প্রিপেইড মিটার দেওয়া হবে। আগামী ডিসেম্বরের দিকে গ্রাহক পর্যায়ে প্রিপেইড মিটার স্থাপনের কাজ শুরুর আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (কেজিডিসিএল) গ্রাহককে প্রিপেইড মিটার পেতে অনলাইনে আবেদন করতে হবে prepaid.kgdcl.gov.bd ওয়েব ঠিকানায়। কেজিডিসিএল’র অনলাইন রেজিস্ট্রেশনকৃত আবাসিক গ্রাহকরাই প্রিপেইড মিটার স্থাপনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের আগে গ্রাহককে সব বকেয়া বিল হালনাগাদ পরিশোধ করতে হবে। প্রতিটি চুলার জন্য রাইজার থেকে রান্নাঘর পর্যন্ত জিআই লাইন গ্রাহককে নিজ খরচে স্থাপন করতে হবে। জিআই লাইনে লিকেজ হলে কেজিডিসিএল’র অনুমোদিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দিয়ে মেরামত করতে হবে। রান্নাঘরে পর্যাপ্ত ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা থাকতে হবে। আবেদনের সাথে এনআইডি সংযুক্ত করতে হবে। আবেদন প্রক্রিয়ায় সব তথ্য যথাযথভাবে উল্লেখ করতে হবে। আবেদনপত্রের সব তথ্য ফর্ম থেকে নিতে হবে। আবেদনপত্র যথাযথ না হলে আবেদন বাতিল করা যাবে। আবেদনক্রম অনুসারে প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হবে। খোঁজ নিয়ে জানা যায় কেজিডিসিএল এর গ্রাহক সংখ্যা এখন প্রায় ৬ লাখ। এরমধ্যে প্রথম দফায় ৬০ হাজার গ্রাহককে প্রিপেইড মিটারের আওতায় আনে কেজিডিসিএল। ইন্সটলেশন অফ প্রিপেইড গ্যাস মিটার ফর কেজিডিসিএল পার্ট-৩ নামের নতুন প্রকল্পের মাধ্যমে এখন ১ লাখ গ্রাহককে প্রিপেইড মিটারের আওতায় আনা হচ্ছে। প্রায় ২৪১ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে নগরীর সদরঘাট, বায়েজিদ, চান্দগাঁও, পাঁচলাইশ, চকবাজার, হালিশহর, পাহাড়তলী, খুলশী, ইপিজেড, বাকলিয়া, কোতোয়ালী, ডবলমুরিং, বন্দর, পতেঙ্গা, আকবরশাহ এবং জেলার হাটহাজারী, সীতাকুণ্ড, মিরসরাই, কর্ণফুলী, আনোয়ারা, পটিয়া, বোয়ালখালী এবং চন্দনাইশ উপজেলার ১ লাখ কেজিডিসিএল গ্রাহক প্রিপেইড মিটার পাবেন। কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের(কেজিডিসিএল) দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা জানান- এই প্রকল্পের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। তাদের দিয়ে প্রধানত- দুটি কাজ করানো হবে। একটি হচ্ছে- নতুন প্রকল্পের রিচার্জ সিস্টেম, সফটওয়্যার ম্যানেজমেন্টসহ আইটি বিষয়ক কাজগুলোকে আগের প্রকল্পের আইটি বিষয়ক কাজের সঙ্গে সমন্বয় করা। অন্যটি হচ্ছে- মিটার ইন্সটলেশনের কারিগরি দিকটা নিয়ে পরামর্শ দেওয়া। তিনি বলেন- পরামর্শক প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে দ্রুত সময়েই এসব কাজ শেষ করবো আমরা। ডিসেম্বরে মাঠ পর্যায়ের কাজ শুরু করা হবে। গ্রাহক পর্যায়ে প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হবে। দ্রুত সময়ের মধ্য নতুন প্রকল্পের আওতায় প্রিপেইড মিটার স্থাপনের কাজ শুরু হবে। দুই বছরের মধ্যেই এই কাজ শেষ করতে চাই আমরা। গ্যাস সাশ্রয়ের পাশাপাশি গ্রহকদের স্বস্তি দিতে চাই।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০