রেজি তথ্য

আজ: মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

সিইউএফএল সার কারখানা কতৃপক্ষের অবহেলায় বিষাক্ত পানি খেয়ে ১৩ মহিষের মৃত্যু

বদরুল হক, আনোয়ারা :

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় অবস্থিত রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার
কোম্পানির (সিইউএফএল) নির্গত এমোনিয়ার বিষাক্ত পানি মাঝেরচর এলাকায় গোবাদিয়া খালের পানিতে মেশে বিষাক্ত হয়ে পড়ে। এ খালের পানি খেয়ে রবিবার সকালে গবাদি পশুর মৃত্যুর এই দূর্ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এম এ কাইয়ুম শাহ তার পেইজবুক ওয়ালে।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন সময়ে কারখানার বিষাক্ত পানি স্থানীয়দের অবগত না করে খালে ছাড়ে ওই প্রতিষ্ঠান। এসব পানি খেয়ে বিভিন্ন সময় গরু-মহিষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এর আগেও বেশ কয়েকবার এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে। বারবার বিষাক্ত পানি খেয়ে গবাদি পশুর মৃত্যু ঘটনা ঘটলেও সেটিকে তেমন গুরুত্বই দিচ্ছেনা
সিইউএফএল কর্তৃপক্ষ। কোনো প্রকার পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই কারখানার বিষাক্ত বর্জ্য মিশ্রিত
পানি খালে ছেড়ে দেয়ার কারণে বার বার এই ধরণের ঘটনা ঘটছে বলে জানা গেছে।
সরেজমিন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, সিইউএফএলের পাশে বসুন্ধরা চর এলাকায় স্থানীয় লোকজনদের পালন করা মহিষগুলো চড়ে। গবাদি পশুগুলো পিপাসার্ত হলে পাশের
গোবাদিয়া খাল থেকে পানি পান করে। আজ প্রতিদিনের মত গোবাদিয়া খালে পানি খেয়ে স্থানীয় মো. নুর মোহাম্মদ ,মো হোসেনের , ইব্রাহিমের ইসহাক মোট ১৩ টি মহিষ মারা যায়। এগুলো ছাড়া আরো ৪-৫ টি মহিষ বিষাক্ত পানি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। সবমিলিয়ে স্থানীয় লোকজনের প্রায় ২০ লাখ টাকার মত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। মৃত মহিষগুলো খালের পাড়েই পড়ে রয়েছে। খবর পেয়ে মহিষের মালিকরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যান।
এসময় পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সিইউএফএলের বিষাক্ত বর্জ্য মিশ্রিত পানি খালে ছেড়ে দেয়ায় বার বার এই ধরণের ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ করেছেন মহিষের মালিকরা। তবে নিয়ম অনুসারে বিষাক্ত পানি মিষ্টি করে নির্গত করার কথা উল্লেখ থালে কতৃপক্ষের কাম খেয়ালীর কারনে এই দূর্ঘটনা হয়ে থাকে। মহিষের মালিক নুর মোহাম্মদ বলেন, প্রতিদিনের মত আমাদের মহিষগুলো বসুন্ধরা চরন ভুমিতে
চড়ে থাকে । সেখান থেকে গোবাদিয়া খালের পানি পান করার কিছুক্ষণের মধ্যেই মহিষগুলো খালের পাড়ে মরে পড়ে থাকে। বার বার সিইউএফএলের খামখেয়ালির কারণে আমাদের মহিষগুলো মারা যায়। আমরা এ ধরণের ঘটনা আর যাতে না ঘটে তার একটি সুষ্ঠু সমাধান চাই। এ বিষয়ে ইউরিয়া ফার্টিলাইজার কোম্পানি-সিইউএফএলের জেনারেল ম্যানেজার মঈনুল হক জানান, মহিষ মারা যাওয়ার ঘটনাটি তদন্ত করে ক্ষতিগ্রস্তদর ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। ঘটনাস্থলে তাদের গবেষণাগারের দল খালের পানি সংরক্ষণ করেছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১