রেজি তথ্য

আজ: বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

প্রযুক্তি ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহ্বান -চসিক মেয়র

ডেক্স নিউজ

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন আন্তরিক ভাবে একই চিন্তা চেতনা ও সদেশ্যের উপর নিজেদের দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে তুলেছে। বিশ্বকে এগিয় নিতে হলে সমোঝতার বিকল্প নেই। বাংলাদশ কোন দেশের নেতিবাচক উদ্দ্যশ্যে সাধন নিজেদের অর্ভিক্ত করে না। বাংলাদেশ সকলের সাথে সুন্দর ও স্বাভাবিক সম্পর্ক বজায় রাখতে চায়। তিনি বলেন, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বাংলাদেশের অন্যতম বাণিজ্যিক অংশীদার। এই অংশীদারীত্বর মাধ্যম শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, বেসরকারী খাত উন্নয়ন, খাদ্য নিরাপত্তা, পরিবেশ এবং জলবাযু পরিবর্তনের হুমকি মোকাবেলায় সহযোগিতা অব্যাহত রাখছে। সামবার (৬জুন) সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরীর সাথে নগর ভবনের কনফারেন্স কক্ষে ইউরোপিউয়ান ইউনিয়নর প্রতিনিধি দলের সাক্ষাতকালে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের জিএসপি সুবিধা অব্যাহত রাখার মধ্য দিয়ে মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উন্নত দেশ উপনীত হতে সহযোগিতা করবে। মেয়র রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ভবিষ্যত শান্তিপূর্ণ ভাব রোহিঙ্গা পুর্নবাসন তাদের সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে বলে আশা করেন। তিনি বাংলাদেশের বিশাল এই জনগোষ্ঠিকে প্রযুক্তিগত জ্ঞান সমৃদ্ধ করতে প্রতিনিধি দলের সহযোগিতা প্রত্যশা করেন।
মেয়র আরো বলেন, প্রাচ্যর রাণী খ্যাত পাহাড়, সাগর, নদী বেষ্টিত বন্দর নগরী চট্টগ্রাম অপূর্ব সুন্দর একটি শহর। নগরীর পর্যটন খাতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান এবং এর সুফল পাওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি নগরীর সবুজয়ান, মৎস্য, স্বাস্হ্য, বর্জ্য ব্যবস্হপনা ও ডিজিটাল ট্রাফিক সিষ্টেম চালুর বিষয়ে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রতিনিধি দলের সহযোগিতার অনুরোধ জানান। প্রসঙ্গক্রম তিনি বলেন চট্টগ্রাম নগর দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার একটি বাণিজ্যিক হারে, এর সুযোগ-সুবিধা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখান অর্থনৈতিক প্রাণ গড়ে উঠেছে বিধায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এখানকার অবকঠামা নির্মাণও বিনিয়োগ করতে পারে। এছাড়াও এখান আন্তর্জাতিক মানের একটি হাসপাতাল গড়ে তোলার ব্যাপারে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সহয়োগিতার আশা প্রকাশ করেন।
ইউরাপিয়ান ইউনিয়নর রাষ্টদূত ও প্রতিনিধিদলের প্রধান চালর্স হুইটলি বলেন, বাংলাদেশ ইউরোপিয়ান ইউনিয়নর অন্যতম বন্ধু। একসাথ সমঝতার মাধ্যমে কাজ করার জন্য ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সকল দেশের জন্য নিজেদের দ্বার উম্মুক্ত রাখছে। বাংলাদেশ আমাদের অন্যতম বাণিজ্যক অংশিদার যা দেশরে মাট বাণিজ্যর ২৪ শতাংশ। তিনি বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে রুপায়িন্ত হওয়ায় সন্তুষ্ট প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশকে বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে নিজেদের সক্ষমতা আরো বাড়াত হবে। যোগাযাগ ও পরিবেশ বান্ধব উন্নয়ন, রপ্তানি পন্যের বহুমুখী কারণ ও সার্ভিস সেক্টরের বিভিন্ন সম্ভবনাকে কাজে লাগানোর উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তিনি চট্টগ্রাম নগরীর সৌন্দর্যের মুগ্ধতা প্রকাশ করে জানান এখানে সমুদ্র বন্দর অবস্থানের কারণে বাণিজ্যিক সুযোগ-সুবিধার পাশাপাশি পর্যটন শিল্প বিকাশেরও যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে । এ বিষয়ে ইউনিয়ন সার্বিক সহযোগিতা করতে আগ্রহী। তিনি আরো বলেন, গত দশকে বাংলাদেশের উন্নয়ন লক্ষণীয়। উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রচুর সম্ভবনা রয়েছে। পোষাক শিল্প, মৎস্য, জনশক্তি রপ্তানি, শিল্পাঞ্চলসহ বহু সেক্টরের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চসিক’র প্রধান নিবার্হী কর্মকর্তা মাহাম্মদ শহীদুল আলম। চসিক’র সচিব খালেদ মাহমুদ। এ সময় আরা বক্তব্য রাখেন নেদারল্যান্ডের রাষ্টদূত অ্যান জরার্ড ভ্যান লিউয়েন, সুইডেনের রাষ্টদূত মিস আলাকজাদ্রা বার্গ ভনলিন্ড, লিথুনিয়া রাষ্টদূত জুলিয়াস, প্রানভিসিয়াস, ইতালি দুতাবাস উপ-প্রধান মি. মাতিয়া ভটুরা, সুইডেন দুতাবাসের প্রধান সচিব মি. আনা সায়াসিন, নতুন দিল্লী¯ ফিনল্যান্ডের কাউন্সিলর মি. কিমমা সিরা, বাংলাদেশ- ইউউ প্রশাসনিক প্রধান মি. আদ্রয়াস হিউ র্বাগার, সংযুক্ত কর্মকর্তা ফ্লারিন বুজাতু মি. আনমারিয়া হারলিয়া, বাণিজ্য ও অর্থনতিক উপদেষ্টা মি. তৈহিদ ফিরাজ, প্রোগ্রাম ম্যানেজার মিসেস লায়না বানু জেসমিন, জুঁই চাকমা, প্রটোকল কর্মকর্তা মিসেস তামান্না হাসান।।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯