রেজি তথ্য

আজ: বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ ১২ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

শিক্ষক নির্যাতনের প্রতিবাদে শাহবাগে প্রতিবাদ

ঢাকা ব্যুরো:

নড়াইলে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা পরিয়ে হেনস্তার প্রতিবাদে শাহবাগে সমাবেশ করেছে নিপীড়নের বিরুদ্ধে শাহবাগ।

সোমবার (২৭জুন) বিকালে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সংহতি জানিয়ে মাইনরিটি রাইটস ফোরাম বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ, বাংলাদেশ শিক্ষক ঐক্য পরিষদ, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (বাকবিশিস) সমাবেশে উপস্থিত ছিল।সমাবেশে বক্তারা বলেন, অধ্যক্ষ স্বপন কুমারকে নয় বরং গোটা জাতিকে যেন জুতার মালা পরানো হয়েছে। শিক্ষক লাঞ্ছনা এখন শিক্ষক হত্যায় উপনীত হয়েছে। যে বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো এগুলো করছে, তাদের হাতে কিন্তু বাংলাদেশের ভবিষ্যত। তাই এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি এবং এ বিষয়ে সরকারকে নজর দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।এসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ও সাবেক চেয়ারম্যান ড. কাবেরি গায়েন বলেন, আমরা এ নিয়ে এমন ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনেকবার এখানে দাঁড়িয়েছি। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া হৃদয় মন্ডলকেও এরকম ঘটনার স্বীকার হয়েছেন। কিন্তু স্বপন কুমার বিশ্বাসকে কোন অপরাধে জুতার মালা পরিয়ে তাঁকে নির্যাতন করা হচ্ছে তার সত্যতা এখনও জানা যায়নি। একেকজন শিক্ষক একেকভাবে নির্যাতন ও হেনস্তার স্বীকার হচ্ছে কিন্তু শিক্ষক মহলের ন্যুনতম দায়সারাভাব লক্ষ্য করা যায়নি। শিক্ষক লাঞ্ছনা এখন শিক্ষক হত্যায় উপনীত হয়েছে। শিক্ষকদের প্রতি এই নিপীড়ন ও হত্যাযজ্ঞকে আমরা উৎসবে পরিণত করছি। যে বাচ্চা ছেলে মেয়েগুলো এসব করছে, তাদের হাতে কিন্তু বাংলাদেশের ভবিষ্যত তাহলে কেমন হবে বাংলাদেশের ভবিষ্যত। সেটি ভাবতে হবে।  সমাবেশে নিপীড়ন বিরোধী শাহবাগের সংগঠক রবিন আহসান বলেন, নড়াইলে যে ঘটনাটি ঘটেছে এটি যেন বাংলাদেশের মানচিত্রে এ জুতার মালা পরানো হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস পুলিশকে ডেকেছেন নিজের নিরাপত্তার জন্য, সেই পুলিশের সামনে তাকে হেনস্তা, অপমানের শিকার হতে হয়েছে। সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। এই হতভাগ্য বাংলাদেশ আমি ৪৯ বছরে দেখিনি।

এসময় শরীফুল ইসলাম, এগুলো কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। বারবার এ ঘটনাগুলো ঘটছে। নড়াইলে পুলিশের উপস্থিতিতে অধ্যক্ষের উপর আক্রমণ করা হয়, সেখানের ডিসি এসপির দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করছি। তারা ঘটনাটিকে বহু এগিয়ে নিয়ে গেছেন৷ এটা এখন রাজনৈতিক ইস্যু, এর ভুক্তভোগীরা যখন দেশ ছেড়ে চলে যায় তখন স্বার্থান্বেষী মহল এর থেকে উপকৃত হয়। মূলত শাসক দলের কনসার্ন ছাড়া একটি ঘটনাও ঘটে না। এর পিছনে রাজনৈতিক ইকুয়েশন আছে। সামনে ভোটের বিষয় আছে। সেগুলোকে কেন্দ্র করে এ জাতীয় ঘটনা ঘটানো হয়।যুব ইউনিয়নের সভাপতি খান আসাদুজ্জামান মাসুমের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুর রাজ্জাক খান, বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক কাজল কুমার দাস, বাংলাদেশ শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব রনজিত দেব,  ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি ফয়জুল্লাহ, যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাবিব আদনান। সভাপতিত্ব করেন নিপীড়নের বিরুদ্ধে শাহবাগ ও গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক আকরামুল হক।

 

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit

Discussion about this post

এই সম্পর্কীত আরও সংবাদ পড়ুন

আজকের সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা

সংবাদ আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯